মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নৌকা স্বাধীনতা ও উন্নয়নের প্রতীক : কানতারা খান – দৈনিক বাংলাদেশে সংবাদ নিয়ামতপুরে রাধা গোবিন্দ মন্দিরে মহা প্রভুর ভোগ উপলক্ষে লীলা কীর্তন অনুষ্ঠিত কাশিয়ানী সদর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মসিউর রহমান খানের আলোচনা ও মতবিনিময়সভা কাশিয়ানীতে ১০টি ঢালসহ আটক ২ – দৈনিক বাংলাদেশে সংবাদ পারুলিয়া ইউপি নির্বাচন : প্রার্থিতা ফিরে পেলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম কাশিয়ানী সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত প্রবাসী ফাউন্ডেশন নারায়ণপুর ইউনিয়ন শো-ডাউন করে ফরম জমা দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান মসিউর রহমান খান কাশিয়ানীতে প্রধানমন্ত্রীর শারদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠান কাশিয়ানী সদর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের ফর্ম জমা দিলেন আঃ ছত্তার শেখ – দৈনিক বাংলাদেশ সংবাদ
বরেণ্য অভিনেত্রী ও শিল্পী স্মৃতিচারণে শ্রদ্ধা জন্ম যার অভিনয়ের সাজঘরে মৃত্যু হয়েছে অভিনয়ের সময়ে

বরেণ্য অভিনেত্রী ও শিল্পী স্মৃতিচারণে শ্রদ্ধা জন্ম যার অভিনয়ের সাজঘরে মৃত্যু হয়েছে অভিনয়ের সময়ে

বিশেষ প্রতিবেদন :
মীরা মমতাজ, মিরা মল্লিক তার নাম পিতা বিমল মল্লিক মাতা মল্লিক ভবানীপুর গ্রামের মনিরামপুর উপজেলার যশোর জেলায় মিরা মমতাজের পৈতৃক নিবাস।

বাবা বিমল মল্লিক যাত্রাদলের বাঁশিবাদক যাত্রাপালার খ্যাতি নামা নায়িকা রিমু কা মল্লিকা বাবা-মা যখন যাত্রা পালায় অভিনয় কাজ করে ঠিক সে সময় নায়িকা রেনুকা মল্লিকার গর্ভে আসে মেরা মল্লিকা যাত্রাপালা এ কাজ করার সময় মেয়েরা যাত্রার সাজঘরে জন্ম হয় আজকের দেশ কাঁপানো যাত্রা অভিনেত্রী মেরা মমতাজ যখন পাঁচ বছর তখন থেকেই অভিনয় মা-বাবার আর শিল্পীদের মত স্বভাব ভাবেই কাজ শুরু করে শিশুশিল্পী হিসেবে।

মিরা তখন জানতো না সে সমাজের অন্যান্য শিশুরা যেভাবে বেড়ে উঠে সে শুধু জানে অভিনয় শিল্পী অভিনয় তাদের মতোই বেড়ে ওঠা একজন শিশুll এভাবে বেড়ে উঠাতে লাগল যাত্রার অপেরার মাঝে তার বড় হওয়া সে একদিন শিল্পী হিসেবে কাজ শুরু করা তার কন্ঠ আর অভিনয় শ্রোতা মুগ্ধ করতে পেরেছিলেন। মীরা ছিলেন স্ব শিক্ষায় শিক্ষিত।
মীরা মল্লিকা নায়িকা হিসেবে সারাদেশে যাত্রার নামকরা প্রধান শিল্পী হয়ে গেলেন l মীরা মল্লিকা যখন অপেরা কাজ করেন একই দলের অভিনেতা আব্দুল মান্নান এর সাথে বিয়ে হয় । মীরার তখন বয়স ১৭ বছর আব্দুল মান্নান নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়নের পবই খিজিরপুর গ্রামের আলী আহমদের ছেলে মান্নান।মীরা মল্লিক বিয়ের সময় ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম পরিবারে মুসলমান হিসেবে নামকরণ করেন মিরা মমতাজl আব্দুল মান্নান নেত্রকোনায় এলাকায় নিজস্ব বাড়ি নির্মাণ করে তাদের সংসার যাত্রা শিল্পী মিরা মমতাজ তার আব্দুল মান্নান যৌথ ভাবে নেত্রকোনাসহ সারাদেশে অভিনয়শিল্পী। অভিনেত্রী হিসেবে দখল করে নিল জায়গাll যেমন নাম যশ আর খ্যাতি।

২০১৪ সালে দিলেন অভিনেতা মীরার স্বামী আব্দুল মান্নান মারা যান তার পরিবারের মাঝে আসে বিপর্যয় মান্নানের স্ত্রী এক মেয়ে সন্তান বাড়ির অংশ নিতে আসলো বাড়ি বিক্রি করে দিল মেরা মমতাজ তার এক মেয়ে এক ছেলে নিয়ে পড়ে যায় অসহায় অবস্থায়ll স্বামীর বাড়ির বাসায় একটি অংশের কিছু পেল। সাতপাই এলাকায়। চার শতক জায়গা নিয়ে শুরু করল বাড়ি ঘর সংসার ছেলে মেয়ে কে নিয়ে সে ভালোই চলছিল তার সংসার অভিনয় পরিমণ্ডল ছিল দেশব্যাপী, খুলনা, যশোহর চট্টগ্রাম-সিলেট জামালপুর-শেরপুর সুনামগঞ্জ সহ সারাদেশে ছিল পরিচিতি। চলছিল ছেলে মেয়ের পড়াশোনা তাহার বড় মেয়ের নাম মেরি মনি এইচএসসি লেভেলের পড়াশোনা করছে একমাত্র ছেলে।

ফারুক হোসেন ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষা মাদ্রাসায় পড়ছে ভালোই চলছিল তাদের সংসার। ২০২০ সালের মার্চ মাসে যখন সমস্ত পৃথিবীর দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ covid-19 করোনা মহামারীতে তখন সবার মতোই মীরার কাজকর্ম পেশাগত অভিনয় বাধা হয়ে গেছেl এই দুর্যোগ সময়ে হাতে যা টাকা ছিল কিছুদিন যেতে না যেতেই শেষ মীরা পড়ে মহা সংকটে। এমন অবস্থায় যে কোথাও কোনো সহযোগিতা বা হাত-পা তা সম্ভব হয়নি এ গুণী শিল্পীর।

এই দুর্যোগ এসে পড়েছে সংসার নিয়ে মহা বিপাকে তিনি। জুটছে না সংসারের খাবার সংসারেরআয়ের চাকা বন্ধ হয়ে গেছেl এই দুঃসময়ে সময়ের সাথে পারছেন না সংসার চালাতে এরপর প্রায় ৫০বছর বয়সে ডায়াবেটিস উচ্চরক্তচাপ সব মিলে অসহায় ওষুধের টাকা পারছেনা সংগ্রহ করতে৷ ওষুধ সেবন হচ্ছেনা ডায়াবেটিস ও রক্তচাপ এর ছিলেন সেই গুণী শিল্পীর। করোনা মহামারীতে শিল্পী পরিবারগুলো ছিল অসহায়। যদি কোন অনুষ্ঠান ছিল না যদিও কোনো অনুষ্ঠান হত না। কিছু কিছু পারিবারিক অনুষ্ঠানে গুণী শিল্পী কণ্ঠশিল্পী মীরা মমতাজ অংশগ্রহণ করতেন। গত ২৮ সেপ্টেম্বর একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দেন মীরা। জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আবেগ উৎফুল্ল ভাবে গান পরিবেশন করেছিলেন তিনি। অনুষ্ঠানের মাঝে তিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। ৩০ সেপ্টেম্বর সবাইকে কাঁদিয়ে বিদায় নিলেন এ পৃথিবী থেকে। একজন গুণী শিল্পীর অকালজ মৃত্যুতে আকস্মিক মৃত্যুতে আমরা শ্রদ্ধা জানাই মরহুমের প্রতি। মীরা মমতাজ দেশবরেণ্য নায়িকা গায়িকা তার প্রতি রইল আবারও শ্রদ্ধা।

বছরে চার মাস শিল্পীদের কাজ অনুষ্ঠান থাকে। বছরে তিন থেকে চার মাস। ছয় থেকে সাত মাস বিনা আয় চলে তারা এমনিতেই শিল্পীরা মানবতা জীবন যাপন করেll এদিকে বৈষয়িক মহামারীতে এসব পরিবার গুলো কষ্টে আছে তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত সরকারের দাবি হয়ে শিল্পীদের তালিকা অনুযায়ী সরকারের চিকিৎসা ও খাদ্য নিরাপত্তা দেওয়া প্রয়োজনlনেত্রকোনা জেলায় যাত্রা শিল্পী হিসেবে শিল্পী যাত্রা সংগীতের বাঁশি হারমোনিয়াম চলে তবে সানাই ড্রামসেট সবমিলে এ শিল্পের সাথে একটি বিশাল অংশ জড়িত রয়েছেll
আসুন আমরা সবাই মিলে যাত্রা আদি সংস্কৃতি শিল্পের সাথে কলা-কুশলী শিল্পি তাদের পাশে দাঁড়াই।

৩০ সেপ্টেম্বর ভোর রাতে ইন্তেকাল করলেন করোনাকালীন দুর্যোগ মুহূর্তে শিল্পীদের অভিনেত্রীদের নিয়েl কাজ করার সময় মীরার সাথে পরিচয়। যাত্রাশিল্পীদের নিয়ে যখন যাত্রা উন্নয়নে কাজ করার জন্য তিনি আগ্রহ প্রকাশ করছিলেন গুণী এই শিল্পী।। এআরএফবি হল রুমে কথা হতl আর দুঃখ কষ্ট নিয়ে কথা বলতেন এই গুণী শিল্পী আজ আমাদের মাঝে আর নেই সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন ওপারে না ফেরার দেশে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। গুণী শিল্পী মিরা মমতাজের আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © dainikbangladeshsangbad 2019
Design By MrHostBD